মডেল টেষ্ট পরীক্ষার বাংলা ১ম পত্র সৃজনশীল প্রশ্ন

মডেল টেষ্ট পরীক্ষা- ২০২১

অষ্টম শ্রেণী

বিষয়ঃ বাংলা

সময়ঃ ২ ঘণ্টা ২০ মিনিট পূর্ণমানঃ ৬০

(দ্রষ্টব্য: প্রত্যেক বিভাগ থেকে ৩টি করে যে কোন ৬টি প্রশ্নের উত্তর দাও)

 

গদ্যাংশ

১। উদ্দীপকটি পড় এবং নিচের প্রশ্নগুলোর উত্তর দাওঃ

অফিসের পিয়ন জাহাঙ্গীর বেশ বেয়াড়া। কাউকে পরোয়া করে না। এমনকি বড় স্যারকে ও না। অফিসের সকলেই তার প্রতি বিরক্ত। সকলে তাকে এড়িয়ে চলে। তার অফিসের নতুন স্যার ফারুক সাহেব জাহাঙ্গীরের সঙ্গে সদাচরণ করেন। তিনি তাঁর ব্যবহার দিয়ে জাহাঙ্গীরের ব্যবহারের পরিবর্তন আনতে চেষ্টা করেন। ধীরে ধীরে জাহাঙ্গীরের আচরণে পরিবর্তন আসে। এখন সে আর কারও সঙ্গে খারাপ আচরণ করে না।

(ক) সুন্দর ব্যবহার প্রবন্ধটি কে রচনা করেন?

(খ) কার মধ্যে মনুষ্যত্ব নিহিত রয়েছে?

(গ) মানুষের আচরণ পরিচালিত করায় সাজে উপায় উদ্ধৃতাংশের আলোকে উপস্থাপন কর।

(ঘ) উদ্দীপকের আলোকে শালীন ও ভদ্র আচরণের সামাজিক গুরুত্ব বিশ্লেষণ কর।

২। বৃদ্ধ আনোয়ার মিয়া বললেন, মুক্তিযুদ্ধ করেছিলাম এদেশের স্বাধীনতার জন্য, বিশ্বের বুকে একটি স্বাধীন দেশের জন্মের জন্য। আমার মতো লাখ লাখ মানুষ প্রাণের মায়া ত্যাগ করে স্ত্রী পরিবার পরিজন ফেলে রেখে এ যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছিল। তিনি আরও বললেন, সে দিন যদি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ৭ই মার্চের ঐ ভাষণ না দিতেন তাহলে আমার মধ্যে এই যুদ্ধে যাওয়ার সাহস ও শক্তি সঞ্চিত হতো না। সত্যিই ঐ ভাষনটিই ছিল আমার মতো লাখ লাখ মুক্তিযুদ্ধের শত্রুকে মোকাবিলা করার জন্য মূল শক্তি, যা আজও শুনলে আমার শরীরের রক্ত উত্তেজনায় টগবগ করে ওঠে।

(ক) রেসকোর্স ময়দানের বর্তমান নাম কি?

(খ) বঙ্গবন্ধু কেন প্রত্যেক ঘরেঘরে দুর্গ গড়ে তুলতে বলেছিলেন?

(গ) বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণ এদেশবাসির কাছে কেন এতো গুরুত্বপূর্ণ? ব্যাখ্যা কর।

(ঘ) “৭ই মার্চের ভাষণ শুনলে এদেশের মানুষের শরীরের রক্ত আজও উত্তেজনায় টগবগ করে ওঠে”- উক্তিটি বিশ্লেষণ কর।

৩। নিচের উদ্দীপকটি পড় এবং নিচের প্রশ্নগুলির উত্তর দাওঃ

সৌরভের পড়াশুনা করতে ভাল লাগে না। প্রতিদিন পড়ার টেবিলের বাতির সুইচ টিপলেই তার শরীর ঝিমঝিম করে ওঠে। এতে তার মনে হয় তার পড়ায় ঘরে কোনো প্রেতত্মা ভর করেছে এবং তাকে পড়তে বাধা দিচ্ছে। ফলে পড়াশুনাই তার মনোযোগ কমছে এবং তার শরীর ও খারাপ করছে।

(ক) প্রেতাত্মা মানে কী?

(খ) মানুষ ভয় পায় কেন?

(গ) সৌরভের ভয় পাওয়ার মানসিক কারণ ব্যাখ্যা কর।

(ঘ) সৌরভের ভয় পাওয়া এবং “তৈলচিত্রের ভূত” গল্পে নগেনের ভয় পাওয়ার মধ্যে যে সাদৃশ্য রয়েছে- তা যুক্তি সহ মতামত দাও।

৪। অনুচ্ছেটি পড় এবং নিচের প্রশ্নগুলোর উত্তর দাওঃ

বাংলাদেশে অনেকগুলো আঞ্চলিক ভাষা আছে। এ ভাষাগুলোর একটি থেকে আর একটির পার্থক্য রয়েছে। যেমন- সিলেটের আঞ্চলিক ভাষা, নোয়াখালির আঞ্চলিক ভাষা, চট্টগ্রামের আঞ্চলিক ভাষা। কাল ক্রমে কোনো একটি বা একাধিক আঞ্চলিক ভাষা এত দূর আলাদা হয়ে উঠতে পারে যে তখন আর একে বাংলা ভাষা বলা যাবে না। এভাবে তৈরী হয় নতুন ভাষা। প্রাকৃত ভাষা থেকে এই প্রকৃয়ায় ভিতর দিয়ে বেরিয়ে এসেছে বাংলা ভাষা। এভাবে পৃথিবীর প্রতিটি ভাষা কোনো কোনো ভাষা বংশের উত্তর সুরি।

(ক) ভাষা বংশ কী?

(খ) নতুন ভাষা তৈরির প্রক্রিয়া ব্যাখ্যা কর।

(গ) উদ্ধৃতিটির আলোকে বাংলা ভাষার জন্মকথা পর্যালোচনা কর।

(ঘ) উদ্ধৃতিটিতে নতুন ভাষা তৈরীর যে প্রক্রিয়ার কথা বলা হয়েছে বাংলা ভাষার জন্মকথা প্রবন্ধের আলোকে তার যৌক্তিকতা তুলে ধর।

কবিতা

৫। উদ্ধৃতিটি পড় এবং নিচের প্রশ্নগুলোর উত্তর দাওঃ

অভিযানের বীর সেনাদল।

জ্বলন্ত মশাল, চল্, আগে চল্।

কুচকাওয়াজেয় বাজাও মাদল,

গাও প্রভাতের গান।

(ক) বীর সেনাদল কারা?

(খ) জ্বালাও মশাল- বলতে কবি কি বুঝাতে চেয়েছেন?

(গ) উদ্ধৃত চরণ চারটির মধ্যে দিয়ে কীভাবে তোমার পঠিত ভাবিযান কবিতায় মূল বক্তব্য ফুটে উঠেছে বর্ণনা কর।

(ঘ) অভিযানে বীর সেনাদল কীভাবে সার্থকতা অর্জন করতে পারবে- বিশ্লেষণ কর।

৬। ছকটি দেখ এবং এর আলোকে প্রশ্নগুলোর উত্তর দাওঃ

(ক) রুপাই কবিতাটি কবি কে?

(খ) ছকটিতে রুপাই কবিতার কোন দুটি দিক প্রদর্শিত হয়েছে?

(গ) রুপাই কবিতার নাম করণের সার্থকতা বিচার কর।

(ঘ) তোমার পঠিত রুপাই কবিতাটির ছকের আলোকে বিশ্লেষণ কর।

৭। উদ্দীপকটি পড় এবং নিচের প্রশ্নগুলোর উত্তর দাওঃ

জ্ঞান-সিন্ধুতে গাহন করিয়া

উন্নত কর জাতি,

সাধনায় লভো দেহে মনে প্রাণে

দিব্য উজল ভাতি।

(ক) নওল কিশোর কবিতাটি কবির কোন কাব্য গ্রন্থ থেকে নেওয়া হয়েছে?

(খ) উন্নত কর জাতি বলতে কি বুঝানো হয়েছে লিখ।

(গ) কবিতাংশে কবি যে পরামর্শ দিয়েছেন তুমি কিশোর হিসেবে কীভাবে তার প্রতি সম্মান দেখাবে? ব্যাখ্যা কর।

(ঘ) কবিতার অংশটুকু অবলম্বনে জ্ঞান অর্জনের সঙ্গে জাতির উন্নয়নের সম্পর্ক বিশ্লেষণ কর।

৮। উদ্দীপকটি পড় এবং প্রশ্নগুলোর উত্তর দাওঃ

ভীরুতা নয় সাহসিকতার মধ্যেই জীবনের অর্থ নিহিত আছে সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়াই জীবনের প্রত্যয়। বিপদের মুখোমুখী হয়ে জয়কে ছিনিয়ে আনাই জীবনের সাহসিকতা। আরব বেদুঈনদের কাছে উদ্দাম স্বাধীন জীবনই কাক্সক্ষত। বিশ্বের সকল মঙ্গলময় অর্জনই সম্ভব হয়েছে সংগ্রামের মধ্য দিয়ে।

(ক) বেদুঈন কারা।

(খ) সামনের দিকে কিভাবে এগিয়ে যাওয়া যায়-বুঝিয়ে লিখ।

(গ) কাক্সিক্ষত লক্ষ্যে পৌছানোর জন্য সাহসিকতা প্রয়োজন- মন্তব্যলি দুরন্ত আশা কবিতার সঙ্গে কীভাবে সম্পর্কিত আলোচনা কর।

(ঘ) ভীরুতা নয় সাহসিকতাই জীবনের অর্থ- উক্তিটি বিশ্লেষণ কর।